নওয়াপাড়ায় নৌ-যান ফেডারেশনের শ্রমিকদের কর্ম বিরতি পালন

502

শামছুজ্জামান মন্টু, স্টাফ রিপোর্টার
যশোরের নওয়াপাড়া নদী বন্দরে অবস্থানকৃত সকল নৌ-যানের মালামাল উঠানামা বন্ধ রেখে কর্ম বিরতি পালন করছে ৩শ ৩৬টি নৌযান শ্রমিক কর্মচারীরা। গত ৩০ নভেম্বর একটি জাহাজে ডাকাতি সংঘটিত হওয়ায় বাংলাদেশ নৌ-যান ফেডারেশনের ক্রেন্দ্রের সিন্ধান্ত মোতাবেক এ কর্ম বিরতি শুরু হয়। তাদের দাবি না মানলে পর্যায়ক্রমে খুলনা ও মংলা পোর্ট সহ সকল বন্দরে এক যোগে কর্মবিরতির ঘোষনা দিয়েছে তারা। বাংলাদেশ নৌ-যান শ্রমিক ফেডারেশনের নওয়াপাড়া শাখার সচিব কর্তৃক এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি মারফতে জানাগেছে গত ৩০নভেম্বর সন্ধ্যায় নওয়াপাড়ার ভাঙ্গাগেট এলাকায় অবস্থিত পরশ অটো রাইসমিলের নিজস্ব ঘাটে অস্থানরত এমভি রাইসা সিমান্ত-২ জাহাজে ডাকাতি সংঘটিত হয়। ডাকাতেরা জাহাজের একজন শ্রমিককে ছুরিকাহত করে নগদ টাকা মোবাইল ফোন সহ মালামাল নিয়ে যায়। এছাড়া অপরিকল্পিত ভাবে নদী ড্রেজিং করায় জাহাজ চলাচলে বিঘœ নদী দখলের কারনে জলাশয় সংকীর্ণ হওয়া অবৈধভাবে লাইটারেজ ইউনিয়নের নামে চাঁদাবাজি ঘাটে জেটি ও পানি ব্যবস্থাপনা জাহাজ সঠিক জায়গায় ভেড়ানো ঘাটে যায়গার সংকুলোন না হওয়ায় নদীর ওপর পাড়ে জাহাজ ভিড়ালে হাজার টাকা চাঁদা দেওয়া ঘাটে লোড আনলোড কাজে সিড়ির ব্যবস্থা করা, খুলনা থেকে বন্দর কর্তৃপক্ষের সিরিয়াল নির্ধারণ অভয়নগর থানার বিপরিত পাশে নদীর মধ্যে নিমজ্জিত একটি মন্দির অপসারণ নৌ-নিরাপত্তা জোরদার সহ ১৩ দফা দাবি আদায়ের জন্য কর্ম বিরতি পালন করে চলেছে নৌ-যান ফেডারেশনের শ্রমিকেরা। নৌ-যান ফেডারেশনের কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি বাহারুল ইসলাম বাহার জানান, এসবদাবি মানা না হলে খুলনা নৌবন্দর ও মংলা সমুদ্র বন্দর সহ দেশের সবকটি বন্দরে এক যোগে কর্মবিরতি পালন করা হবে। কর্ম বিরতি চলাকালে চার শতাধিক ঘাটের প্রায় ১৫ হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। বাজারে বেচাকেনায় ভাটা পড়েছে। নওয়াপাড়া বাজারের ব্যবসায়ি নেতা শাহজালাল হোসেন বলেন এভাবে কয় এক দিন শ্রমিকদের কর্মবিরতি চলতে থাকলে দেশে আমদানিকৃত পন্যের দাম বেড়ে যেতে পারে। অভয়নগর থানা অফিসার্স ইনচার্য জানিয়েছেন জাহাজী শ্রমিকরা আমার কাছে কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করে নাই। ঘটনা শুনে আমরা জাহাজী শ্রমিকদের নিরাপত্তা জোরদার করেছি। ঘাটে ডাকাতি সংগঠিত হয়নি, একটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার সাথে জড়িত একজন ছিনতাইকারীকে গ্রেপতার করেছি। এদিকে কর্মবিরতি চলাকালে নওয়াপাড়া শাখা অফিস মিলনায়তনে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ লঞ্চ শ্রমিক এ্যাসোসিয়েশনের খুলনা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাষ্টার ফারুক হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য পেশ করেন কেন্দ্রীয় নেতা বাহারুল ইসলাম বাহার। নওয়াপাড়া শাখার সদস্য সচিব নিয়ামুল ইসলাম, মাষ্টার হাসান আলি জামাল, সোমেন প্রমুখ। এসময় নৌযান ফেডারেশনের শ্রমিকেরা উপস্থিত ছিলেন।