প্রার্থীদের মতামত নিয়ে ইসিতে যাবে ঐক্যফ্রন্ট

523

নির্বাচন বাতিলের দাবি নিয়ে আজ নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। সকালে ফ্রন্টের প্রার্থীদের নিয়ে গুলশানে বৈঠক করবেন ফ্রন্ট নেতারা। প্রার্থীদের মতামত নিয়ে স্মারকলিপি নিয়ে নির্বাচন কমিশনে যাবেন তারা। আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দাখিলের পর নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে যাবেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা। আজ সকাল ৯টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীরা মিলিত হবেন। সেখানে একটি বৈঠকের পর বিকাল ৩টায় তারা নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি দিতে যাবেন। সূত্র জানায়, নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্টের  প্রার্থীদের হারানো হয়েছে উল্লেখ করে নতুন নির্বাচনের দাবি জানানো হবে স্মারকলিপির মাধ্যমে। এদিকে এই নির্বাচনে অংশ নেয়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীদের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে কেন্দ্র থেকে।

চিঠিতে ভোটে অনিয়ম-কারচুপির প্রমাণ, প্রতিটি কেন্দ্রের অস্বাভাবিক ভোটের হিসাব, গ্রেপ্তার এজেন্ট ও নেতাকর্মীদের তালিকা, সহিংসতায় আহত ও নিহতদের তালিকা এবং কারচুপির ভিডিও থাকলে সেটাসহ আটটি বিষয়ে তথ্যসহ একটি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। স্মারকলিপির সঙ্গে এসব প্রতিবেদনও জমা দেয়া হতে পারে। অন্যদিকে আজ একাদশ জাতীয় সংসদের বিজয়ীদের শপথ অনুষ্ঠান থাকলেও এতে অংশ নেবেন না জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিজয়ী প্রার্থীরা। তারা দ্রুততম সময়ে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে নামতে চান। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ও গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসিন মন্টু মানবজমিনকে বলেন, এই নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের যেসব প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন তাদের শপথ নেয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ আমরা এই নির্বাচন বয়কট করে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি।

এখন শপথ গ্রহণ করলে স্ববিরোধী হয়ে যাবে। আমরা বৃহস্পতিবার সকল প্রার্থী বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে বৈঠক করবো। সেখান থেকে নির্বাচন কমিশনের স্মারকলিপি প্রদান করতে যাব। তবে বৃহস্পতিবার শপথ গ্রহণ না করলেও আগামীতে শপথ গ্রহণ করবো কিনা সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।
ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী মানবজমিনকে বলেন, আমরা দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। শেষ পর্যন্ত থেকেছি। এই নির্বাচনে অংশ নিয়েই সরকারকে বৈধতা দেয়া হয়ে গেছে। এখন যারা বিজয়ী হয়েছেন তাদের শপথ না নেয়ার বিষয়ে একটা আলোচনা হয়েছে।

তবে আগামীতে কখনো শপথ নেয়া হবে কিনা সেটা সিদ্ধান্ত হয়নি এখনো। তিনি বলেন, প্রার্থীরা আজ নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি দেবেন। এরপর ঐক্যফ্রন্টের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তীতে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করবে। উল্লেখ্য, একাদশ সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের মধ্যে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে গণফোরামের দুইজন এবং বিএনপির ৫ জন প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।