আজ সরস্বতী পূজা পালিত : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেবীর পূজা অর্চনা করা হয়

725
মোঃ আলামিন খান
আজ (১০ফেব্রুয়ারি) রবিবার বাণী অর্চনাসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা। ধর্মীয় বিধান অনুসারে সাদা রাজহাঁসে চড়ে বিদ্যা ও সুরের দেবী সরস্বতী পৃথিবীতে আসেন। হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম এই ধর্মীয় উৎসবে পঞ্চমী তিথিতে বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতীর চরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবেন অগণিত ভক্ত। সনাতন ধর্মালম্বীদের মতে দেবী সরস্বতী সত্য, ন্যায় ও জ্ঞানালোকের প্রতীক। বিদ্যা, বাণী ও সুরের অধিষ্ঠাত্রী।
সরস্বতী পূজা উপলক্ষে হিন্দু সম্প্রদায় বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা আজ বাণী অর্চনাসহ নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে
সারাদেশের মন্দির ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে পূজা ছাড়াও অন্য অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি, আলোকসজ্জা ইত্যাদি। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হিন্দু সম্প্রদায়ের সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতীপূজা উদযাপিত
আজ (১০ ফেব্রুয়ারি) রবিবার সকালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়’ মন্দির প্রাঙ্গনে আয়োজন করা হয় সরস্বতীপূজা। ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা। সনাতন ধর্মমতে, সরস্বতী বিদ্যা, বুদ্ধি, সঙ্গীত, ও শিল্পকলার দেবী। হিন্দুশাস্ত্র অনুসারে, সাদা রাজহাঁসে চড়ে ও বীণা হাতে সরস্বতী পৃথিবীতে আসেন। সকাল ১০ টার দিকে খুবি’র পূজামণ্ডপে শুরু হয় বাণী অর্চনা। এরপরে পুরোহিত মন্ত্র পড়ে পূজার আচার পালন করেন এবং ভক্তরা দেবীর পাদপদ্মে পুষ্পাঞ্জলি দেন। এ ছাড়া দেবীর সামনে ‘হাতেখড়ি’ দিয়ে শিশুদের বিদ্যাচর্চার সূচনা করা হয়। পূজা শেষে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. ফায়েক উজ্জামান সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদেশ্যে বক্তব্য রাখেন। এতে উপস্থিত ছিলেন, খুবি’র ট্রেজারার অধ্যাপক সাধন রঞ্জন ঘোষ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. সারওয়ার জাহান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দসহ উপস্থিত ছিলেন।