সাতক্ষীরায় আম গাছে মুকুলের সমাহার, দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব

476

বদরুজ্জামান খোকা , জেলা প্রতিনিধি সাতক্ষীরা ;

সাতক্ষীরায় এবছর আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। অন্য জেলার তুলনায় সাতক্ষীরাতে আম উৎপাদনের হয়ে থাকে বেশি। সাতক্ষীরা জেলার প্রয়োজন মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে থাকে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে সাতক্ষীরা জেলায় গত বছর ৪ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ করা হয়েছিল। তবে এ বছর ৪ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমের আবাদ হয়েছে। এবার একটু আগেই প্রতিটি বাগানে আম গাছে আগাম মুকুল এসেছে। এদিকে গাছে গাছে আগাম মুকুল আশায় বেজায় খুশি সাতক্ষীরার আম চাষিরা। তারা আম গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করে দিয়েছে ইতিমধ্যে। আমের মুকুলের মাথা গুলোকে পোকা দমনের আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য ঔষধ স্প্রে করা হচ্ছে। সাতক্ষীরা জেলার নিয়মিত আমের জাত গোপাল ভোগ, হিম সাগর, আম্ররুপালি, আম মল্লিকা জাতের আম গাছ বেশি আশা করছেন। এবার আমের ফলন ভালো হবে জেলায় পাটকেলঘাটা থানা যাত্রা গ্রামের হাফিজুর রহমান জানান এ বছরে আমের মুকুল অনুকূল। তাই একটু আগেভাগেই মুকুল এসেছে। গতবারের মতো এই মৌসুমের শুরুতেই আবহাওয়া তেমন বিপর্যয় ঘটেনি। এছাড়া বাঁশদহা গ্রামের শফিকুল, মাধবকাটির সাজেদুর রহমান বলেন এবছর আমের মুকুল যেমন হয়েছে তাতে মনে হচ্ছে আল্লাহর রহমতে আম ভাল হবে। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগের উপর আমাদের নির্ভর করে আম কেমন হবে। তাছাড়া এই বছর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে আমের খুব সহায়ক করা হচ্ছে। যা আমাদের কাজকে ইতিমধ্যে আরও সহজ করে তুলেছে। তাই আবহাওয়া যদি অনুকূলে থাকে আশা করি আমরা লাভবান হতে পারব। এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন জেলায় গত বছর ৪২ হাজার মেট্রিকটন আম বিদেশে রপ্তানি করা হয়েছিল। এবার লক্ষ্য মাত্রা ৫০ হাজার মেট্রিক টন আশা করা হচ্ছে। সব কিছু অনুকূলে থাকলে এবার আম গাছে খুব একটা কীটনাশক প্রয়োজনের হবে না। তবে ছত্রাক জনিত রোগে আমের মুকুল ও পুষ্টি আগাম ঝরে যাওয়ার আশঙ্কা থাকছে। তাই বাগানে দুই দফা ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হবে। এতে ছত্রাক জাতীয় রোগ থেকে আমের মুকুল গুলো রক্ষা পাবে। যার ফলে আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা তৈরি হবে। তিনি আরো জানান যেহেতু সাতক্ষীরার আম দেশের সকল অঞ্চল সহ বিদেশেও রপ্তানি হয়ে থাকে। আশা করছি এ বছর দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব হবে। সেজন্য সাতক্ষীরায় আমের উৎপাদন আগের বছরের তুলনায় ভালো করতে কৃষকেরা নানা পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। তাছাড়া আমের ভাল ফলন নিশ্চিত করতে কৃষি বিভাগ নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। কৃষকের সুবিধা মতে সব রকম সহায়তা সরকার ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিয়ে যাবে।