ফকিরহাট সংবাদ

157

বাগেরহাটে বিষ্ণুপুরে জমাজমি বিরোধের জেরে
হামলায় একজন গুরুতর জখম

বাদশা আলম ফকিরহাট থেকে
বাগেরহাটে জমাজমি বিরোধ জেরে প্রতি পক্ষের সংঘবদ্ধ হামলায় মুছা খান (৩৪) নামের একজন গুরুতর আহত হবার খবর পাওয় গেছে। আর ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে বাগেরহাট সদরের বিষ্ণুপুরের ডিংসাইপাড় গ্রামের সেলিমের দোকানের কিছু দুরে । আহত মুছা খান ওই ইউনিয়নের কু কোড়ামারা গ্রামের খান হাবিবুর রহমানের ছেলে। সে বর্তমানে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ বিষয়ে মুছার পিতা খান হাবিবুর রহমান বাদি হয়ে পরের দিন শনিবার ৬ জনের নাম উল্ল্যেখ সহ ২/৩জন অজ্ঞাত নামা আসামী করে বাগেরহাট মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।আভিযোগের সুত্রে জানা যায় যে, ঘটনার দিন সকালে হামলার শিকার মুছা খান কু-কোড়ামার গ্রামের নদীর চরে তাদের মৎস ঘেরে যাবার পথে, জামাজমি বিরোধের জেরধরে ডিংসাই পাড়ার-মৃত এবাদ আলী শেখ এর ছেলে মোহাম্মদ আলী শেখ(৬০) এর নেতৃত্বে ওই এলাকার মোস্তাব ফকির(৫০) ডিংসাই পাড়ার মিজান ফকির(৪০) নয়ন ফকির (২৫) শাহজান ফকির(৩০) হোসেন আলী (২৫) সহ অজ্ঞাত নামা আরো ২/৩ পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে ওৎপেতে থেকে পথ রোধ করে মুছার উপর হামলা চালিয়ে এলোপাথাড়ী মার পিট করে রাস্তায় ফেলে রাখে এবং প্রান নাশের হমকি দেয় মামলার এজাহারে উল্লেখ। হাসপাতালে চিকিৎসাধী আহত মুছা খান এই প্রতিনিধিকে বলেন আমাদের সাথে দির্ঘ দিন ধরে ৫২নং কুলিয়া দাইড় মৌজায় এস এ ১৪৬১ নং খতিয়ানে ৪০৬দাগে ০.১২একর এবং ৪০৭ দাগে ০.৩৫ একর মোট ০.৪৭ একর খাস সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। যা এই মামলার বাদী আমার পিতা হাবিবুর রহমান তার পিতমহ থেকে এ পর্যন্ত্য সরকারের নিকট থেকে বন্দোস্তের মাধ্যমে ভোগদখল করে আসছে। উক্ত সম্পত্তি জাল জালিয়াতির মাধ্যমে জোর-জবন দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠে। এ বিষয়ে কোর্ট মামলা ও করেছে ওই পক্ষ মামলায় হেরে গিয়ে এখন হামলায় লিপ্ত হয়েছে। আর এর নেপথ্যে উসকানী দিতেছে, বাগেরহাট কোর্টে চাকুরী রত প্রসেস সার্ভয়ার ১নং আসামীর পুত্র মেহেদী হাচান।
মোড়েলগঞ্জে নারীর ক্ষমতায়ন নেতৃত্বে বিকাশ ও সামাজিক
উন্নয়ন প্রশিক্ষনের উদ্ধোধন

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে নারীর ক্ষমতায়নে নেতৃত্ব বিকাশ ও সামাজিক উন্নয়ন প্রশিক্ষনের উদ্ধোধন করা হয়েছে।

সোমবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন(পিডিবিএফ)এর উদ্যোগে অফিসার্স ক্লাবে (সোম ও মঙ্গলবার ২দিন ব্যাপী) এ প্রশিক্ষনের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মো. গোলাম আজম উপ পরিচালক (পিডিবিএফ) পিরোজপুর অঞ্চল। বিশেষ অতিথি রফিকুল ইসলাম, মো. ফারুক হোসেন সিনিয়র এ্যসিসট্রেন্ড ডায়রেক্টর(পিডিবিএফ) ।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন মৃলেশ কান্তি মজুমদার, উপজেলা পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন কর্মকর্তা। ২দিন ব্যাপী এ প্রশিক্ষনে ২৫ জন নারী সদস্য অংশ গ্রহন করছেন। উদ্ধোধনকালে নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, নারী ক্ষমতায়নের বৃদ্ধি’র লক্ষে নারী শিক্ষা নিশ্চিত করা, আত্ম নির্ভরশীল হয়ে স্বাবলম্বী হওয়া। এ প্রশিক্ষনের মাধ্যমে প্রশিক্ষন নিয়ে প্রতিটি নারী সমাজের নেতৃত্বের বিকাশ ঘটাবে।

কচুয়ায় হাসপাতালের ছাদ ধ্বসে চিকিৎসাধীন
বৃদ্ধরোগী গুরুতর আহত

বাগেরহাটের কচুয়ায় সরকারী হাসপাতালের ছাদ ধ্বসে পড়ে চিকিৎসাধীন বৃদ্ধ রোগী গুরুতর আহত হয়েছেন। শনিবার রাত পৌনে ১১টার দিকে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুরুষ ওয়ার্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহত আ.মান্নান মীর (৮৪) কচুয়া সদরের খোরশেদ আলী মীরের ছেলে। কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডা. সোহানা সুলতানা মৌ বলেন, আহত রোগী আ. মান্নান মীর গত বৃহস্পতিবার শ্বাসকস্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। শনিবার রাতে তিনি তার নির্ধারিত শয্যায় ঘুমিয়ে পড়েন। রাত পৌনে ১১টার দিকে হঠাৎ তার উপরে ছাদের কিছু অংশ ভেঙ্গে পড়ে, এতে তার মাথায় জখম হয় ও বুকে আঘাত পায়। দ্রুতই আমরা তার চিকিৎসা করি, তিনি শংকা মুক্ত।কচুয়ার (ভারপ্রাপ্ত) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.বেলফার হোসেন বলেন, পুরুষ ও মহিলা দুইটি ওয়ার্ডের অবস্থাই ঝুকিপুর্ণ, যেকোন সময়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আমরাও ঝুকি নিয়ে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি। এভাবে প্রায়ই ছাদ ভেঙ্গে পড়লে আমাদের ওয়ার্ডের আবাসিক রোগীর চিকিৎসা বন্ধ করে দিতে হবে। আজকে একজন রোগী অল্পের জন্য প্রানে বেঁচে গেলেন।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আমলে নির্মিত এ হাসপাতাল ভবনটি এখন নিজেই রুগ্ন হয়ে পড়েছে। নতুন করে ভবন নির্মান করা না হলে, বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকায় থাকতে হবে চিকিৎসা সেবা গ্রহনকারী (রোগী), তাদের স্বজন ও চিকিৎসা সেবাদানকারী ব্যাক্তিদের।