শিক্ষা মন্ত্রী ফুলতলার রহমানিয়া এলিমেন্টারি স্কুলে পরিদর্শনে আসেন

300
শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি সোমবার এলাকার শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ রহমানিয়া এলিমেন্টারি এন্ড সেকেন্ডারি স্কুল পরিদর্শনে ও বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থার বিষয়ে খোঁজখবর নিতে। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা ও সভাপতি কুতুবুদ্দিন আহমেদ মন্ত্রী মহোদয়কে বিদ্যালয় প্রবেশের সাথে সাথে শুভেচ্ছা, অভিনন্দন ও স্বাগত জানান। মন্ত্রী মহোদয় তাঁর সফরসঙ্গীদের সাথে নিয়ে বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য উপভোগ করেন। তিনি বিদ্যালয়ের সু বিশাল প্লে কর্নার (হাসিখুশি কক্ষ), টি কর্নার, লিটিল শপ (সততা স্টোর) এবং সুবিশাল লাইব্রেরী, খাদিজা রহিম অডিটোরিয়াম, অত্যন্ত চমৎকার সুসজ্জিত সাইকেল গ্যারেজ, প্রতিটি শ্রেণীকক্ষ, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা চমৎকার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ওয়াশরুম, শিক্ষক মিলনায়তন, কম্পিউটার ল্যাব, প্রধান শিক্ষক কক্ষ, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, মনের মাধুরী মিশিয়ে সাজানো স্কুলের সামনে অবস্থিত চমৎকার ফুলের বাগান, বিদ্যালয়ের পরিবহন গ্যারেজ, বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নামাজ পড়ার জন্য তৎসংশ্লিষ্ট মসজিদ, মাজার ও প্রতিষ্ঠাতা মহোদয়ের সেই পুরানো বাড়িতে ঘুরে ঘুরে সৌন্দর্য অবলোকন করেন এবং সবুজের সমারোহে মুগ্ধ হয়ে নিজ মোবাইল ফোনে ছবি তোলেন। প্রতিষ্টাতা মহোদয়ের সাথে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ওয়ালে টাঙানো চমৎকার ওয়ালমেট এর লেখা ও ছবি দেখেন এবং আলাপচারিতার মধ্য দিয়ে সময় কাটান।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি কুতুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, শিক্ষা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্ৰহণের ৫ মাসের মধ্যে তিনি প্রথম আমাদের স্কুলে এসে আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য দিয়েছিলেন। আমরা সেই থেকেই অনুপ্রাণিত। আজ আবারও ভিজিটের মধ্য দিয়ে তিনি প্রমাণ করে দিলেন যে, তিনি এই বিদ্যালয়টিকে অন্তরের অন্তঃস্থল দিয়েই ভালোবাসেন। আমরা বিদ্যালয় কতৃপক্ষ মন্ত্রী মহোদয়ের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।
এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রসাশক (সার্বিক) মোঃ সাদিকুর রহমান খাঁন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) দিপা রানী সরকার, ওসি (তদন্ত) মোঃ শাহাদাত হোসেন, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ আরাফাত হোসেন প্রমুখ।