ফুলতলায় জাল ভিসা দিয়ে লেবানন পাঠানোর প্রতারনা, নেপথ্যে মিজান

532

 আল আমিন খান

খুলনার ফুলতলা উপজেলার মশিয়ালী গ্রামের মৃত কালু গাজীর পূত্র মিজানুর রহমান গাজী দীর্ঘ দিন যাবৎ একাধিক ব্যক্তিকে লেবানন পাঠানোর কথা বলে জাল ভিসা দিয়ে সর্বশান্ত করেছে পরিবারগুলোকে। হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। ভুক্তভোগীরা দীর্ঘ দিন চুপ চাপ থাকলেও এবার মুখ খুলেছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, মিজান গাজী এক সময় লেবানন প্রবাসী ছিলো। দেশে এসে তাঁর স্ত্রী বিউটি এবং তিনি বিভিন্ন প্রত্যান্ত অঞ্চলে গিয়ে বেকার যুবকদের লেবানন পাঠাবে বলে টাকা নিতো  ২ থেকে ৩ লাখ টাকা করে। সাথে বিশ্বস্ততার জন্য চেক প্রদান করত। তবে কয়েকদিন পর মিলত লেবানন দেশে যাওয়ার ভিসা। তবে সেই ভিসা সম্পূর্ণ ভূঁয়া ।

কথা হয় ফুলতলার তাজপুর গ্রামের রেশমা বেগমের সাথে। তিনি জানান, মিজান গাজী আমার ছেলে ও দেবরকে লেবাননে পাঠানোর জন্য জাল ভিসা দিয়েছিলো। আমি মিজান গাজীকে জাল ভিসার বিষয় কথা বললে তিনি ভিসার বাবদ যে টাকা দিয়েছিলাম তা ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। রেশমা আরও জানান, বছর গড়িয়ে গেলেও মিজান কোন প্রকার টাকা ফেরৎ দেয়নি।

ভুক্তভোগী সোহেল জানান, মিজান গাজী আমাকেও লেবানন পাঠানোর কথা বলে জাল ভিসা প্রদান করেছে।

শুধু সোহেল বা রেশমা বেগম নয়। বহু মানুষ মিজান গাজীর ক্ষোপ্পরে পড়ে সর্বশান্ত হয়েছে। মিজান গাজীর বিরুদ্ধে রেশমা বেগম বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরে আইনগত সহায়তা চেয়ে অভিযোগ দিয়েছেন। মিজান গাজীর বিরুদ্ধে চুল চেড়া তদন্ত হলে জাল ভিসা তৈরি কোথায় হয় তার বিস্তারিত জানা যাবে বলে এই ভুক্তভোগী জানান।

অভিযুক্ত মিজানুর রহমান ওরফে মিজান গাজীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন,“ জাল ভিসাগুলো আমি দিয়েছি রেশমা বেগমকে, তবে অন্যলোক ভিসাগুলো আমাকে দিয়েছে।